সংবাদ শিরোনাম :
নৈরাজ্য-বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির প্রতিবাদে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ মৌলভীবাজার জেলা জামাতের আমির গ্রেপ্তার শ্রীমঙ্গলে শিক্ষানবিশ আইনজীবী হত্যা মামলার ২ আসামিকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার সিলেট বাস টাার্মিনালে বিশাল জুয়ার আসর নেতৃত্বে রাজন,আল আমিন ও শ্রমিক নেতা সেলিম ছারছীনা দরবার শরীফের পীর সাহেবের ইন্তেকাল, জানাজা বৃহস্পতিবার তরুণদের দক্ষতা ও সম্ভাবনাই আগামীর বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম ভিত্তিঃ এমইউ ভিসি ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক মৌলভীবাজারে ডিবি ও পুলিশের অভিযানে মাদকসহ গ্রেপ্তার ৪ অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন অভিযানে ডেসকো ঝুঁকিপূর্ণ হওয়াতে মার্কেট ভাঙল শ্রীমঙ্গল পৌরসভা, নির্মাণ হবে অধুনিক মার্কেট কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা আমাদের জন্য যেমন সম্ভাবনা তেমনি চ্যালেঞ্জঃ এমইউ ভিসি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক
দক্ষিণ সুরমা অপরাধ বানিজ্য হালচাল…. ১ দক্ষিন সুরমায় আবারো বেপরোয়া জুয়া সম্রাট আল আমিন ও নজরুল। জুয়ারীদের মধ্যে হাতাহাতি।

দক্ষিণ সুরমা অপরাধ বানিজ্য হালচাল…. ১ দক্ষিন সুরমায় আবারো বেপরোয়া জুয়া সম্রাট আল আমিন ও নজরুল। জুয়ারীদের মধ্যে হাতাহাতি।

 

 

বিশেষ সংবাদদাতা ::

এতকিছুর পরও বন্ধ হচ্ছেনা জুয়া সম্রাট খ্যাত আল আমিন ও নজরুলের জুয়ার আসর। সিলেটের দক্ষিণ সুরমা এলাকায় ভারতীয় শিলং তীর জুয়া খেলাসহ বিভিন্ন ধরণের অপরাধ কর্মকান্ড দিন দিন বেড়েই চলেছে।

বিগত দিনে এসব অপরাধ প্রবনতা কমলেও বর্তমানে তা বিস্তার লাভ করে চলেছে। শীলং তীর জুয়ার পাশাপাশি জান্ডুমান্ডু ও তাস কাটাকাটি জুয়া ও তিন তাশি জুয়া খেলার ব্যবসায় সয়লাব দক্ষিণ সুরমা এলাকার চাঁদনিঘাটের মাছ বাজার এলাকা। আর এসব অপরাধ কর্মকান্ডের মুলহোতা হচ্ছে সিলেটের কুখ্যাত জুয়াড়ি আল আমিন ও নজরুল । তবে আলআমিন নিজেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পরিচয় প্রদান করে। কখনো পুলিশের সোর্স আবার কখনো মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব, আবার নিজেকে নাট্য অভিনেতা হিসেবেও পরিচয় দিয়ে আসছে বলে জানা যায়।

 

প্রাপ্তসূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালে তৎকালীন এডিসি জেদান আল মূসার নেতৃত্বে রাত ১ টার সময় জুয়ার আসর থেকে আল আমিন ও তার সহযোগীদের আটক করা হয়। পরদিন তাদেরকে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আটককৃতদের সাজা প্রদান করে জেলহাজতে প্রেরণ করেন।
আল আমিন জেল থেকে বের হওয়ার পর দক্ষিণ সুরমা পুলিশ ফাঁড়ীকে ম্যানেজ করে আবারও অপরাধ কর্মকান্ডে তখনো বেপরোয়া ভাবে সক্রিয় হয়ে উঠে।

এছাড়া বিগত ১৫ জানুয়ারী ২০২৩ ইং বিকাল প্রায় ৫ টার দিকে দক্ষিণ সুরমা থানার কদমতলী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই আবুল হোসেনের নেতৃত্বে এক সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনা করে কদমতলী চাঁদনীঘাট মাছবাজার সরাসরি জুয়াখেলার বোর্ড থেকে হাতেনাতে চার আসামিকে আটক করে পর দিন আদালতে সুপর্দ করে পুলিশ ।

সম্প্রতি যমুনা মার্কেটের সামনে, রেলওয়ে স্টেশনের প্রবেশ মুখে পাবলিক টয়লেটের পিছনে কুখ্যাত জুয়ারী আল আমিন ও নজরুলের জুয়ার আসর ছিল। ঈদের পরপরই “হলি সিলেট” অনলাইন ভার্সনে সংবাদ প্রকাশ হলে বিষয়টি সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে পড়লে তৎক্ষনাৎ জুয়ার আস্তানাটি ভেঙ্গে দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয় সংশ্লিষ্টদের। আলআমিন ও নজরুলের জুয়ার আস্তানা দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর বর্তমানে কুখ্যাত জুয়ারী নজরুল ও আলআমিন চক্র জায়গা বদল করে পুনরায় দক্ষিণ সুরমার চাঁদনীঘাটের মাছ বাজারের ভিতরে শিলং তীর, জান্ডুমান্ডু ও জুয়াখেলার আস্তানা বসিয়ে কৌশলে হাতিয়ে নিচ্ছে সাধারণ শ্রমজীবী মানুষের রক্তচোষা টাকা।

 

সারারাত মটরসাইকেল যোগে দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন পয়েন্টে আল-আমিন ঘুরাফেরা করে। এতে করে মধ্যরাতের বাস যাত্রী কিংবা রেলযাত্রীরা তাদের বেপরোয়া চলাচলে ভয়ে আতংকিত হয়ে পড়েন।

দক্ষিণ সুরমার কদমতলীর স্থানীয় এক ব্যবসায়ী নাম ঠিকানা গোপন রাখার শর্তে জানান, আল আমিন প্রতিদিন গভীর রাত পর্যন্ত মোটরসাইকেল নিয়ে বেপরোয়া ভাবে চলাফেরা করে।
এতে দূর-দূরান্ত থেকে আসা রেলযাত্রী ও বাস যাত্রীরা ভয়ে বিপাকে পড়েন।
তবে কিছু ব্যাবসায়ী ও সাধারণ মানুষের অভিমত দক্ষিণ সুরমা থানাধীন কদমতলী পুলিশ ফাঁড়ীর সদস্যদের সাথে রয়েছে আল আমিন ও তার জুয়াড়ীদের গভীর সুসম্পর্ক।

যার ফলে এই জুয়াড়ীরা বেপরোয়া চলাফেরা করতে কোনো বাঁধা নিষেধ মানেনা। তবে তাদের কুকর্মের সকল হিসাব নিকাশ রয়েছে স্থানীয় প্রশাসনের নিকট।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনৈক ব্যক্তি জানান, রাতে জুয়ারীদের মধ্যে টাকার হিসাব নিকাশ নিয়ে প্রায়ই জুয়ারীদের মধ্যে হাতাহাতি ও মারামারি হয়। ফলে আশপাশের মানুষ বেশ আতংকের মধ্যে সময় কাটান।
স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ এতো কিছুর পরও প্রশাসনের উদাসীনতায় বারবার সবকিছুর উর্ধ্বে থেকে যাচ্ছে কুখ্যাত জুয়াড়ী আল আমিন ও নজরুল ও তাদের সহযোগীদের জমজমাট জুয়া খেলা ও মদ গাঁজা সেবন ।

 

এ ব্যপারে জানতে আল আমীনের মুঠোফনে যোগাযোগ করা হলে তিনি হলি সিলেট অফিসের ফোন শুনেই ফোন কেটে দেন।

এ ব্যপারে দক্ষিণ সুরমা পুলিশ ফাঁড়ীর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল হোসেন”র কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, স্টেশনে তাদের জুয়ার আস্তানা উচ্ছেদ করা হয়েছে। নতুন করে আস্তানা বসালে আইনী ব্যাবস্তা নেয়া হবে। তিনি আরোও বলেন একাদিক বার আলআমিন নজরুলের জুয়ার আস্তানা থেকে হাতেনাতে পুলিশ অনেক জুয়ারীদের আটক করা হয়েছে। এবং জুয়ার আস্তানা ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে। এবারো বিষয়টি খোজ নিয়ে দেখবো সত্যতা পাওয়া গেলে পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এ ব্যপারে দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো শামসোদ্দোহা বলেন, আমি যথাশীঘ্রই ব্যাবস্থা নিচ্ছি।

চলবে…….

 

সংবাদটি শেয়ার করুন :





© All rights reserved © 2021 Holysylhet