সংবাদ শিরোনাম :
শ্রীমঙ্গলে তীব্র তাপদাহে কৃষি মন্ত্রীর উদ্যোগে পথচারীর মাঝে শরবত বিরতণ শ্রীমঙ্গলে প্রথমবারের মতো হাইব্রিড জাতের গোল্ডেন ওয়ান চিকন ধানের বাম্পার ফলন মাঠে হাসছে হাইব্রিড জাতের গোল্ডেন ওয়ান চিকন ধান মহান মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকার বাস্তবায়নে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন: অতিরিক্ত সচিব মো.আজিমুদ্দিন বিশ্বাস মৌলভীবাজারে জেলা পুলিশের মাস্টার প্যারেড ও মাসিক কল্যাণ সভা অনুষ্ঠিত শ্রীমঙ্গলে নাট্যবেদ নৃত্য নিকেতন এর রজত জয়ন্তী উৎসব অনুষ্ঠিত সিলেট প্রেসক্লাবের উৎসবমুখর নির্বাচন: ইকু সভাপতি, সিরাজ সম্পাদক সুনামগঞ্জে ধান কেটে উৎসবের উদ্বোধন করলেন কৃষি মন্ত্রী  মৌলভীবাজারে জুয়ার আসরে ডিবির অভিযান, জুয়া খেলার সরঞ্জাম, নগদ টাকাসহ ১৩ জুয়াড়ী গ্রেপ্তার
জাতীয় পর্যায়ে প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগীতায় উপস্থিত বক্তৃতায় বিভাগীয় পর্যায়ে প্রথম হয়েছে শ্রীমঙ্গলের চা শ্রমিক সন্তান নাহিদ

জাতীয় পর্যায়ে প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগীতায় উপস্থিত বক্তৃতায় বিভাগীয় পর্যায়ে প্রথম হয়েছে শ্রীমঙ্গলের চা শ্রমিক সন্তান নাহিদ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
হাজারো শিক্ষার্থীকে পেছনে ফেলে উপস্থিত বক্তৃতায় বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ হয়েছে শ্রীমঙ্গল রাজঘাট চা বাগানের চা শ্রমিক সন্তান নাহিদ। তার পুরো নাম আব্দুস সামাদ নাহিদ। পিতার নাম সেলিম আহমদ ও মায়ের নাম রুনা বেগম।
নাহিদের বাবা একজন চা শ্রমিক ও রাজঘাট ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান। নাহিদ রাজঘাট চা বাগান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর মেধাবী শিক্ষার্থী।

সে এ বছর জাতীয় পর্যায়ে প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগীতায় উপস্থিত বক্তৃতায় প্রথমে ইউনিয়ন পর্যায়ে পরে পর্যায়ক্রমে সিলেট বিভাগে প্রথম স্থান অর্জন করে বর্তমানে জাতীয় পর্যায়ে প্রতিযোগীতার অপেক্ষায়। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সুত্রে জানাযায়, উপস্থিত বক্তৃতার জন্য ১০টি বিষয় থেকে লটারী করে তার ভাগ্যে যে বিষয়গুলো পড়েছে সবগুলোই সে চমৎকার ভাবে উপস্থাপন করেছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম জানান, ইউনিয়ন পর্যায়ে নাহিদের ভাগ্যে বক্তৃতা বিষয় পড়েছিল “আমার মা”। উপজেলায় পড়েছিল “১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্ম দিন”, জেলায় পড়েছিল “একুশে ফেব্রæয়ারী” এবং বিভাগে পড়েছে “বাংলার খোকা”। তিনি জানান, নাহিদ তার মেধা দিয়ে চমৎকার ভাবে উপস্থিত বক্তৃতা দিয়েছে। একজন চা শ্রমিক সন্ত্রানের এই প্রতিভা দেখে সবাই মুগ্ধ হয়েছেন। এসময় তিনি জাতীয় পর্যায়েও যেন সে সফলতা লাভ করতে পারে তাই তার জন্য শুভকামনা করেন।
এ ব্যাপারে নাহিদ জানায়, এ অর্জনের জন্য তার বিদ্যালয়ের শিক্ষিকারা কঠোর পরিশ্রম করেছেন। বিশেষ করে শিক্ষিকা মৌ চক্রবর্তী শিক্ষিকা মাধবী রানী তাঁতী তার বাসায় গিয়েও বার বার অনুপ্রেরণ দিয়েছেন।
পিতা সেলিম আহমদ জানান, সন্তানের এ সাফল্যে তিনি নিজেও গর্বিত। এ জন্য তিনি তার বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষিকাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন :





© All rights reserved © 2021 Holysylhet