সংবাদ শিরোনাম :
১৭ পদাতিক ডিভিশন সিলেট অঞ্চলের তত্ত্বাবধানে আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস-২০২৪ পালন করা হয়েছে । শ্রীমঙ্গলে শান্তিপূর্ন ভোট গ্রহণ শেষে চলছে গননা সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার  কর্তৃক সহকারী পুলিশ কমিশনার কোতোয়ালী মডেল থানা কার্যালয় পরিদর্শন শ্রীমঙ্গলে দুই ভোট কেন্দ্রের চারজন সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি হযরত শাহজালাল (রহঃ) এর মাজার শরীফের ৭০৫তম পবিত্র ওরস এর আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি পরিদর্শন করেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার শেখ হাসিনার ৪৩তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ইউকে ওয়েলস আওয়ামী লীগের সভা অনুষ্ঠিত শ্রীমঙ্গলে র‌্যাবের অভিযানে ইয়াবা, মদ ও পিস্তলসহ যুক্তরাজ্য নাগরিক আটক কুলাউড়ায় ভোক্তার অভিযানে ৩ প্রতিষ্টানকে জরিমানা যুক্তরাজ্যের বাকিংহাম প্যালেসে রাজপরিবারের পার্টিতে আমন্ত্রন পেলেন শ্রীমঙ্গলের অলিউল কবি কাজী নজরুলের জন্মবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধু লেখক সাংবাদিক ফোরামের আলোচনা সভা
সিলিটের দক্ষিণ সুরমায় হারুন বন্ধ হলেও এখানো বহাল কাশেমসহ কয়েকটি চিহ্নিত জুয়ার আস্তানা

সিলিটের দক্ষিণ সুরমায় হারুন বন্ধ হলেও এখানো বহাল কাশেমসহ কয়েকটি চিহ্নিত জুয়ার আস্তানা

 

ক্রাইম সংবাদদাতা:: সিলেটে ডিবি পুলিশের সাড়াশি অভিযানে সিলেটে জুয়ারীদের আস্তানা তছনছ হলেও এখনো বহাল দিক্ষণ সুরমার জিঞ্জিরশাহ মাজার সংলগ্ন কাশেমের আস্তানা, কীনব্রিজের নীচে মানিকের আস্তানা, মার্কাস পয়েন্টের লাকসামী ফারুকের আস্তানা, নতুন রেলস্টেশন সংলগ্ন নজরুলের আস্তানা, চাদঁনীঘাট মাছ বাজার আস্তানা, কুচাইয়ের হায়দারের কলোনীর আস্তানা, পুরাতন রেলস্টেশন মেডিকেলের পাশে ও মন্দির সংলগ্ন জামালের আস্তানা।তবে আইসির সাথে বনিবনা না হওয়ায় বন্ধ বাঁশপালা মাকেটে অন্তরের আস্তানা।

স্থানীয় ও ডিবি সুত্রে জানাযায় গত নভেম্বর মাস থেকে সিলেট মহানগর এলাকার সকল জুয়ার আস্তানায় ডিবি পুলিশ সাড়াশি অভিযান পরিচালনা করে সকল জুয়ার বোর্ড ভেঙ্গে তছনছ করে দিয়েছে।

ডিবি পুলিশের এমন কর্মকান্ডে দক্ষিণ সুরমার সচেতন মহল সন্তোষ প্রকাশ করে প্রসংশা করলেও অসস্থি প্রকাশ করেন দক্ষিণ সুরমা কদমতলী ফাঁড়ির ইনচার্জ আবুল হোসেনের ভূমিকা নিয়ে। তারা বলেন দক্ষিণ সুরমার অপরাধীদের রক্ষাকর্তা হচ্ছেন কদমতলী ফাঁড়ির আইসি।

এর আগে তালাশ সাপ্তাহিক হলি সিলেট জুয়ারীদের বিরোদ্ধে কিছুদিন যাবৎ তাদের অনলাইন ভার্সন ও জাতীয় প্রিন্ট পত্রিকায় সিলেট মহানগরীর উত্তর ও দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন জুয়ার আস্তানা নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এরপরেই নড়েছড়ে বসে মহানগর পুলিশ প্রশাসন।

এর পর থেকে দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন জুয়ার আস্তানায় মহানগর ডিবি পুলিশের বিশেষ নজরদারী বৃদ্ধি করলে জুয়ারীদের মনোবল ভেঙ্গে যায়। তাই জুয়ারীরা পুনরায় সংগঠিত হয়ে জুয়ার বোর্ড চালাতে হিমশিম খাচ্ছে। এভাবে ১৫দিন বন্ধ থাকার পর দক্ষিণ সুরমার কদমতলী ফাঁড়ির আইসিকে ম্যানেজ করে আবারও শুরু হয় জুয়ার জমজমাট বেপরোয়া প্রতারণা।

সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে স্থানীয়দের কাছ থেকে জানাযায় ২০২৩ইং সালের নভেম্বর মাসে উত্তর ও দক্ষিন সুরমার সকল জুয়ার আস্তানায় ডিবি পুলিশের সাড়াশি অভিযান চালিয়ে ভেঙ্গে তছনছ করা হয়েছে, বাদ যায়নি শীর্ষ জুয়ারী হারুন-কাশেমের আস্তানাও। তাদের আস্তানা থেকেও অনেক জুয়ারীকে আটক করে থানায় মামলা দিয়ে হস্তান্তরের মাধ্যমে আদালতে সোপর্দ করা হয়। ডিবির সেই সাঁড়াশি অভিযানে নীরিহ খেটে খাওয়া সাধারন জুয়ারীর পাশাপাশি আটক করা হয় ধরাছোঁয়ার বাহিরে থেকে যাওয়া শীর্ষ জুয়ারী ও বোর্ড মালিক হারুন, নজরুল, কাশেমের মেয়ে জেসমিন, বেবী ও ছেলে আজাদকে।

দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন জুয়ার আস্তানা ঘুরে দেখা যায়, জুয়ারীদের আনাগোনা নেই বল্লেই চলে। এ সময় পথচারীদের কাছে জুয়ার আসর সম্পর্কে জানতে চাইলে, তারা এই প্রতিবেদককে বলেন ডিবি পুলিশের অভিযানের পর আর জুয়ার আসর বসেনি, সবাই ভয় পাচ্ছে। এদিকে দক্ষিণ সুরমার সকল জুয়ার আস্তানা বন্ধ হলেও বহাল তবিয়তে নাচুরবান্দাা জুয়ারী কাশেমসহ মানিক, লাকসামী ফারুক, নজরুল, শিপলু, চাদঁনীঘাট মাছ বাজার, হায়দারের কলোনীর আস্তানা।

স্থানীয়রা জানান আবুল কাশেমসহ জুুয়ারীরা কদমতলী ফাড়িঁ ও দক্ষিন সুরমা থানাকে ম্যানেজ করেই তাদের আস্তানা গুলোতে আবারও দেদারছে জুয়ার প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই তারা নীরব ভূমিকা পালন করছে।

রাকিব নামের একজন বলেন পুলিশের নীরবতার সুযোগে কাশেমসহ জুয়ারীরা তাদের অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে।

সাধারন মানুষের প্রশ্ন সকল জুয়ার আস্তানা বন্ধ হলেও অদৃশ্য কারণে
কাশেমসহ সক্রিয় অন্যান্য আস্তানা বন্ধ হয়না, কারণ তাদের শেল্টারদাতা আইসি আবুল হোসেন?

সংবাদটি শেয়ার করুন :





© All rights reserved © 2021 Holysylhet