সংবাদ শিরোনাম :
ছাতকে ভারতীয় চিনি বোঝাই ট্রাক সহ আটক ১ ছাতকে ভূমিহীন-গৃহহীন ৬৮টি পরিবার পেয়েছে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর ছাতক পৌরসভায় টিএলসিসি’র বিশেষ সভা অনুষ্ঠিত দিরাই উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের আয়োজনে ওয়ার্ড সভা অনুষ্ঠিত দিরাইয়ের করিমপুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের আয়োজনে ওয়ার্ড সভা অনুষ্ঠিত নেপাল-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশীপ আ্যওয়ার্ড ২০২৪ পদকে ভুষিত হলেন অধ্যাপক হরি দাস রায়।। দিরাইয়ে এফআইভিডিবি-আরইসিসি প্রকল্পের সহযোগিতায় ওয়ার্ড সভা অনুষ্ঠিত শ্রীমঙ্গলে গ্যাস সঞ্চালন লাইনের ওপর নির্মিত অবৈধ ২৫টি ঝুঁকিপূর্ণ স্থাপনা উচ্ছেদ জুড়ীতে পানিতে ডুবে দুই শিশু ও রাজনগরে মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু মৌলভীবাজারে কোরবানির পশুর হাটের নিরাপত্তা সংক্রান্ত মতবিনিময় সভা
কলি পামওয়েল না মবিল কি খাচ্ছে সাধারণ মানুষ ?

কলি পামওয়েল না মবিল কি খাচ্ছে সাধারণ মানুষ ?

এ এ রানা::
তেল নিয়ে কিছু কোম্পানি নিন্ম আয়ের মানুষের সাথে প্রতারণা করলেও প্রশাসন, বিএসটিআই এবং ভোক্তাঅধিকার খাবার পণ্যের প্রতারণা বন্ধে কোনো ধরনের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারছেনা।

খোঁজ নিয়ে জানাযায় ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার কটালপুর নয়াবাজার এলাকায় সাবেক সফিক কমিউনিটি সেন্টারে দুই বছর থেকে চলছে খাদ্যপণ্যের মতো স্পর্শকাতর অবৈধ তেলের প্রতারণা ব্যবসা। তবে কিছুদিন পূর্বে “কলি ” পামওয়েল এর কণধার কাওছার মিয়া সিলেট বিএসটিআই থেকে লাইসেন্স পেয়েছেন। অথচ দীর্ঘদিন থেকে কলি নামে ৯০০মিলি ও ৪৫০ মিলি বোতল জাত পামওয়েল বাজারে অবৈধভাবে বিক্রি হয়ে আসছে। বিএসটিআই এবং ভোক্তাঅধিকারের চোখ ফাঁকি দিয়ে কিভাবে বাজারজাত হয়ে আসছে সেই প্রশ্ন জনমনে ঘোরপাক খাচ্ছে।

কলি পামওয়েলের ম্যানেজার এই প্রতিবেদককে বলেন আমার কোম্পানির সাইনবোর্ড থাকবে কি থাকবেনা সেটা আমাদের নিজস্ব ব্যাপার । ৪৫০ ও ৯০০ মিলি দিয়ে গ্রাহকদের সাথে প্রতারণা করা হচ্ছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন লিটার হচ্ছে কেজি থেকে কম তাই আমরা ৪৫০ ও ৯০০ মিলির বোতলজাত করছি, সাথে ৫০০ মিলি, ১ লিঃ , ২লিঃ ও ৫ লিঃ বোতল আছে।
পরে বলেন ৪৫০ ও ৯০০ মিলির অনুমোদনের জন্য সিলেট বিএসটিআই অফিসে আবেদন করা হয়েছে।
পরিবেশ এর ছাড়পত্র আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন পরিবেশের ছাড়পত্র লাগে না। সিলেটের সকল তেল কোম্পানি এভাবেই তেল উৎপাদন ও বিক্রি করে। ব্যবসা করলে অনিয়ম হবেই।

সরেজমিন গিয়ে দেখাযায় অসাস্থকর পরিবেশে সয়াবিন ও পামওয়েল বোতলজাত করা হচ্ছে। প্যাকেটজাত করার মেশিন থাকলেও বোতলজাত করার কোন মেশিন পাওয়া যায়নি। ডাম ও প্যাকেট থেকে সরাসরি তেল বোতলে ভরা হচ্ছে। একটি বিশ্বস্থ সূএ জানিয়েছে সাংবাদিক ও প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই চলে কলি তেলের প্রতারণা ব্যবসা।

এব্যপারে ফেঞ্চুগঞ্জ তেল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক সম্ভু নাথ সাহা এই প্রতিবেদককে বলেন কুশিয়ারা এডিবয়েল ফুড প্রোডাক্টস কোম্পানির পণ্যে কলি সয়াবিন ও পামওয়েলের লাইসেন্স আছে, পরিবেশের ছাড়পত্র লাগে না, ৪৫০ ও ৯০০ মিলি অনুমোদনের জন্য আবেদন করা হয়েছে। তবে কিছু অনিয়মও আছে।

এব্যপারে সিলেট বিএসটিআই এর উপ-পরিচালক লুৎফুর রহমান সাপ্তাহিক হলি সিলেটকে জানান কোম্পানির কারখানায় অবশ্যই সাইনবোর্ড থাকতে হবে। কলির লাইসেন্স আছে সয়াবিন এবং পামওয়েল উৎপাদন করে বিক্রির । কতদিন হয়েছে লাইসেন্স প্রাপ্তির জানতে চাইলে তিনি বলেন সঠিক বলতে হলে ফাইল দেখতে হবে, তবে বেশিদিন হয়নি। ৪৫০ ও ৯০০ মিলি বোতলজাত করে বিক্রির অনুমতি আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন অনুমতি নেই। আবেদনও আসেনি। এরকম বিক্রি করে থাকলে সেটা আমার জানা নেই , খোঁজ নিয়ে অভিযান পরিচালনা করবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন :





© All rights reserved © 2021 Holysylhet