সংবাদ শিরোনাম :
ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যে সিলেটে পবিত্র শবে বরাত পালিত আইজিপি পদক পাচ্ছেন রাজনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আব্দুছ ছালেক শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্টিত সিলেটে নান্টু শাহিনের ভয়াল মাদকের থাবায় ধ্বংসের পথে যুবসমাজ মু.মাসুদ রানাসহ সিলেটের ১৬ জন পাচ্ছেন বিপিএম-পিপিএম পদক শ্রীমঙ্গলে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে ৪ দিনব্যাপী শুভ দ্বারোদঘাটন ও শ্রীশ্রীবিগ্রহ প্রতিষ্ঠা মহোৎসব কুলাউড়ায় ডাকাতির প্রস্তুতিকালে দেশীও অস্ত্রসহ ৩ ডাকাত আটক কুলাউড়ায় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতির বিরুদ্ধে সরকারি বরাদ্দ আত্মসাতের অভিযোগ মৌলভীবাজার আইনজীবী সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন: সভাপতি কামাল উদ্দিন চৌধুরী-সম্পাদক মো: জয়নুল হক মহানগরজুরে ডিবি পুলিশের অভিযান অব্যাহত!! :::::::::::::::::::::::::::::::::::::::::::::::::::::::::::: ডিবি পুলিশের সাড়াশি অভিযানে  দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন জুয়ার স্পট থেকে ২৮ জুয়ারী আটক।
সিলেট দক্ষিণ সুরমায় ক্নীন ব্রীজের নিচে মানিক ও তাহেরের বাসায় জোয়ার রমরমা বানিজ্য !!

সিলেট দক্ষিণ সুরমায় ক্নীন ব্রীজের নিচে মানিক ও তাহেরের বাসায় জোয়ার রমরমা বানিজ্য !!

এ এ রানা::
সিলেটের দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন স্পটে প্রকাশ্যে দিবালোকে রমরমা ভারতীয় নিষিদ্ধ শীলং তীর জুয়া ও ঝান্ডু মান্ডু, তিনতাস, নাইট তীর শীলং জোয়ার রমরমা ব্যবসা চললেও কদমতলী টার্মিনাল পুলিশ ফাঁড়ি ও দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ নিরব ভূমিকা পালন করছে।

প্রতিনিয়ত এসব জোয়ায় নগরীর নিন্ম আয়ের এবং মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষ যেমন ঠেলাচালক,রিক্সাচালক, সিএনজি চালক, , স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্র, বেকার যুবক, বিভিন্ন কলোনির বিধবা মহিলা এবং তাদের সন্তানেরা রাতারাতি বড়লোক হওয়ার লোভে এসব জোয়ার আসরে সারাদিনের ইনকাম বিনিয়োগ করে দিনশেষে প্রতারিত হয়ে খালি হাতে বাসায় ফিরে। ফলে একদিকে যেমন বাসায় কলহ সৃষ্টি হয়, অন্যদিকে পরিবারের আহার জোগাতে চুরি ছিনতাইয়ে জড়িয়ে পড়ে এসব জুয়ারীরা। তাই দক্ষিণ সুরমায় অপরাধ প্রবণতা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

এসব জোয়ার আসর নগরীর ব্যস্ততম সড়কের পাশে চললেও পুলিশ দেখেও না দেখার ভান করছে। ইতিমধ্যে দক্ষিণ সুৱমা জোয়ার বাজার হিসেবে মহানগরীতে পরিচিতি পেয়েছে বলে অনেকেই অভিমত ব্যাক্ত করেন।

ক্্র্ীন ব্রিজের দক্ষিণ পাস মহানগরীর সবচেয়ে ব্যস্ততম এলাকার একটি। সেই ক্নীন ব্রিজের নিচে মানিক নামের ব্যক্তি তাহেরের বাসা ভাড়া নিয়ে মানিক ও তাহের গংরা মিলে তিন তাস নামক জুয়ার আসর চালিয়ে প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকার ব্যবসা করছে। পুলিশের সামনে এসব ব্যবসা চললেও পুলিশ অজ্ঞাত কারণে নিরব ভূমিকা পালন করছে।

পুলিশের পক্ষ থেকে মাঝেমধ্যে লোক দেখানো অভিযান চললেও জোয়ার বোর্ড মালিকরা থেকে যায় ধরাছোঁয়ার বাইরে, ফলে জোয়ার ব্যবসা বন্ধ করা যাচ্ছে না। উত্তর সুরমা এবং দক্ষিণ সুরমার মিলন স্থল ক্নীন ব্রিজের আশপাশ যেন অপরাধীদের স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে।

পুলিশের নিষ্ক্রিয় ভূমিকার কারণে অপরাধীরা বেপরোয়া হয়ে উঠছে। এসব জোয়ার ব্যবসার ফাঁকে চলে মদ, গাঁজা, ইয়াবার মতো মাদক ব্যবসা। জুয়ারি মানিক তাহেরের কাছ থেকে প্রতিদিন পাঁচ হাজার টাকা ভাড়ার বিনিময়ে জুয়ার বোর্ড চালায়। এ ব্যাপারে জোয়ার বোর্ড মালিক মানিকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি রাগান্বিত সরে হলি সিলেট কে জানান টার্মিনাল পুলিশ ফাঁড়ি দক্ষিণ সুরমা থানা এবং স্থানীয় প্রভাবশালীদের ম্যানেজ করেই এই ব্যবসা চালাচ্ছি, তাই আমাকে কিছু করতে পারবেন না, এইসব লিখেও কোনো লাভ নেই। আমার কিছুই করতে পারবেনা।

এ ব্যাপারে উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) সুহেল রেজা পিপিএম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন আমি জুয়ার আসর বন্ধ করতে এখনি অভিযান পরিচালনার ব্যবস্থা করছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন :





© All rights reserved © 2021 Holysylhet