সংবাদ শিরোনাম :
শ্রীমঙ্গলে পূর্বশত্রুতার জেরে হামলা, বাড়ীর প্রাচীর ভাঙচুর মৌলভীবাজারে পুলিশ লাইনে পোড়ামাটির শিল্পকর্ম উদ্বোধন করলেন আইজিপি শ্রীমঙ্গলে স্কুল বাজেট প্রণয়নে নাগরিক সচেতনতামুলক টাউনহল সভা সিলেটের কালিঘাট পিয়াজ পট্টি  থেকে ৫ জুয়াড়ি আটক মৌলবভীবাজারে মসজিদের ইমামকে চাকরি ছড়তে মারধর ও হুমকির অভিযোগ কুলাউড়ায় হত্যা মামলার প্রধান আসামিসহ আটক ৩ সিলেটে নগরীর দক্ষিণ সুরমা থেকে এক যুবক নিখোঁজ সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ শ্রেণি শিক্ষক শ্রীমঙ্গলের মোহাম্মদ আল আমিন কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা দিল শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাব কখনো সাংবাদিক কখনো নাটকের নায়ক কখনো ডিবির সোর্স কে এই সোহাগ?
মৌলভীবাজারে সর্বনিম্ন ৬.৩ তাপমাত্রায় জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা

মৌলভীবাজারে সর্বনিম্ন ৬.৩ তাপমাত্রায় জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা

প্রতিবেদন,এম.মুসলিম চৌধুরী:
চায়ের দেশ মৌলভীবাজাররে শীত মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড হয়েছে। তীব্র শীতে জনজীবন স্থবীর হয়ে পড়েছে। বিপাকে পড়েছেন চা শ্রমিক সহ নি¤ আয়ের মানুষ।
বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) সকাল ৯ টায় শ্রীমঙ্গস্থ আবহাওয়া অফিস এ বছরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে ৬.৩ ডিগ্রী সেলসিয়াস। বিকেল ধেকে ঠান্ডা বাতাশে শীতের তীব্রতা বাড়তে থাকে। সকালে রোদ উঠার পর কমতে থাকে শীত। প্রচন্ড ঠান্ডার কারণে সন্ধ্যার পর থেকে শহর স্থব্ধ হয়ে পড়ে। কমে যায় মানুষের আনাগোনা। তীব্র ঠান্ডায় চা শ্রমিকসহ নি¤œ আয়ের মানুষ পড়েছেন বিপাকে। তীব্র শীতে আর ঘন কুয়াশায় জেলার শীতকালীন সবজির ক্ষতি হচ্ছে বলে একাধিক কৃষক জানিয়েছেন। শ্রীমঙ্গলস্থ আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের কর্মকর্তা বিবলু চন্দ্র জানান, ঘন কুয়াশা ও আকাশ মেঘাচ্ছন্ন না থাকায় শীতের তীব্রতা বেড়ে গেছে। সকাল ৯ টায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৬.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এটি চলতি মৌসুমে এ অঞ্চলের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। এ অঞ্চলে মূলত জানুয়ারি মাস থেকে ফেব্রয়ারির প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত শীতের তীব্রতা বেশী থাকে। উল্লেখ্য, ১৯৬৮ সালের ৪ ফেয়ায়ারি এ অঞ্চলে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল ২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মৌলভীবাজার জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক সামছুদ্দিন আহমদ জানান, শীতের কারণে রোরো ধানের বীজতলায় চারা বৃদ্ধি বিলম্বিত হয়েছে। শীত ও ঘন কুয়াশা দীর্ঘস্থায়ী হলে ধানে চিটা আসতে পারে। মৌলভীবাজারের সিভিল সার্জন ডা. চৌধুরী জালাল উদ্দিন মুরর্শেদ জানান, অন্য সময়ের তুলনায় এখন শীতজনিত রোগে প্রতিদিন জেলার সরকারি ও বেসরবারি বিভিন্ন হাসপাতালে শিশু ও বয়স্কদের ভর্তির সংখ্যা অনেক বেশি। মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান জানান, জেলায় মোট বরাদ্দ এসেছে ৩৫ হাজার ২শত ৮০ পিস কম্বল। ইতোমধ্যে কম্বলগুলো জেলার ৭টি উপজেলার ছিন্নমূল, দিনমজুর ও অসহায় মানুষের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন :





© All rights reserved © 2021 Holysylhet